ইসলামের মৌলিক বিষয় নিয়ে ঐক্য গড়ে তোলা সময়ের অপরিহার্য দাবী: বিচারপতি মুহাম্মাদ আব্দুর রউফ

সকল ভেদাভেদ ভূলে এক কাতারে শামিল হতে না পারলে ভবিষ্যতে বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়বে। দেশের স্বার্থে, ইসলামের স্বার্থে সকলকে ইসলামের মৌলিক বিষয়ে একমত হওয়া এখন সময়ের মৌলিক দাবী।

গত শুক্রবার সমন্বিত স্কলার্স ফোরাম 'ইক্যুয়িটি' কর্তৃক আয়োজিত "বাংলাদেশে ওলামায়ে কেরামের  ঐক্যের প্রয়োজনীয়তা ও প্রক্রিয়া: সমস্যা ও সমাধান" শীর্ষক জাতীয় সেমিনারে সকল আলোচকগণ ইসলামের মৌলিক বিষয়ে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিষয়ে একমত হন।

সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি মোহাম্মদ আব্দুর রউফের সভাপতিত্বে ইক্যুয়িটির সেক্রেটারি এডভোকেট খালিদ ইয়াহইয়ার উপস্থাপনায় প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় মালয়েশিয়ার সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ ইউছুফ আলী।

বিচারপতি আব্দুর রউফ বলেন, রাসুলুল্লাহ সঃ এর ওফাতের পর হতেই উম্মাহর মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে মতভেদ পরিলক্ষিত হলেও সমকালীন আলেমগণ তা হতে উত্তোরণের পথ খুঁজে বের করে উম্মাহকে এক কাতারে নিয়ে আসার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। আমাদেরও সকল মত-পথের উর্ধ্বে উঠে এক উম্মাহ নীতিতে পথ চলার বিষয়ে সকলে ঐক্যমত পোষণ করেন।

মাওলানা কবি  রুহুল আমিন খান বলেন, আমরা দেখতে পাচ্ছি চিন্তাগত ঐক্যে হচ্ছে এবং ধর্মীয়  সর্বমহলে চিন্তা চেতনা বৃদ্ধি পেয়েছে এটি আমাদের জন্যে ইতিবাচক,ঝগড়া -বিবাদে শক্তি লোপ পায় তাই মুসলিম ধর্মীয় নেতাদের এগুলো বাদ দিয়ে এক প্লাটফর্মে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।ইখতেলাফ বা মতভেদ থাকতেই পারে সেটা যেনো প্রকাশ্য না হয় মতভেদ বিষয়গুলো নিয়ে অভ্যন্তরীন ভাবে আলোচনা করে সমাধান করার উদ্যোগ নিতে হবে।যে সকল ফরজ বা ওয়াজিব বিষয়ে মতভেদ নেই সেগুলো বিষয় হলেও ঐক্যমত হওয়া সময়ের দাবী।

মাওলানা মুহম্মদ খলীলুর রহমান নেছারাবাদী বাংলাদেশকে তাওহীদি দ্বীপের সাথে তুলনা করে বলেন, স্বাধীনতা, ভৌগলিক ও শরীআহ্ দিক হতে ঐক্য আমাদের জরুরী এ বিষয়টা সর্বমহলের উপলব্ধি করা প্রয়োজন। সব বিষয়ে ঐক্যবদ্ধ প্রয়োজন নেই মৌলিক বিষয়ের উপর ঐক্য করলেও জাতি উপকৃত হবে।

মসজিদ মিশনের সেক্রেটারী জেনারেল ড.খলিলুর রহমান আলমাদানী বলেন, ঐক্যের মূলভিত্তি হলো পবিত্র কুরআনুল কারীম,এই কুরআনুল কারীম হলো আল্লাহর রশি তাই আমাদের সকলের সকল দল মত বা মতভেদ ভূলে গিয়ে আল্লাহর রশি ধরে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।নিজেদের ভিতরে ভূলবুঝাবুঝি বা সমস্যা থাকতেই পারে তা সংশোধনের উদ্দেশ্য ব্যাক্তি পর্যায়ে বলার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে, কোনভাবেই যেনো আমাদের জবান দিয়ে আমরা প্রকাশ্য কারও বিরোধিতা না করি।ছোট -বড় সকল স্তরের সকলে মিলে বিক্ষিপ্ত না হয়ে পার্থক্য না করে একত্রিত হওয়া সময়ের অপরিহার্য।

অধ্যাপক ড.আহমদ আবদুল কাদির বলেন, ঐক্যবদ্ধ যদি আমরা না হতে পারি অন্তত ঐনৈক্যর কাজ বা কথা যেনো আমরা ময়দানে না বলি ,তিরস্কার বাদানুবাদ বন্ধ করে দ্বীনের স্বার্থে দলাদলী বন্ধ করে এগিয়ে যেতে হবে।

ইক্যুয়িটি প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. শাফী উদ্দিন মাদানীর স্বাগত বক্তব্যের মধ্যদিয়ে সেমিনার শুরু হয়। সেমিনারে উপস্থিত সকল আলোচকগন মৌলিক বিষয়ের উপর ঐক্যবদ্ধ থাকার বিষয়ে একমত পোষণ করেন।

সেমিনারে আরও আলোচনা করেন, ওয়ার্ল্ড মুসলিম হেরিটেজ রিসার্চ সেন্টার, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. মোহাম্মদ রুহুল আমিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বিভাগের প্রফেসর ড. যোবায়ের মুহাম্মদ এহসানুল হক, বাংলাদেশ জমঈয়তে আহলে হাদীসের সহ সভাপতি শায়খ ড. আব্দুল্লাহ ফারুক, বাংলাদেশ নেজামী ইসলামী পার্টির মহাসচিব শায়খ মুসা বিন ইযহার, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ।

পাঠকের মন্তব্য