বাংলাদেশে প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৩.৮ শতাংশ : আইএমএফ

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে সৃষ্ট সংকটের কারণে এবছর বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনে প্রবৃদ্ধির হার কমে ৩.৮ শতাংশ হতে পারে বলে মনে করছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। সংক্রমণের শুরুর আগে এই ঋণদাতা সংস্থাটি জানিয়েছিল চলতি বছর ৭.৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হতে পারে। সম্প্রতি প্রকাশিত আইএমএফের কান্ট্রি রিপোর্টে জিডিপি প্রবৃদ্ধির এই নতুন প্রাক্কলন তার ৩.৬ শতাংশ পয়েন্ট কম।
আইএমএফের রিপোর্টে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের অর্থনীতির ওপর করোনা ভাইরাসের প্রভাব হবে মারাত্মক। বিদেশি মুদ্রার সবচেয়ে বড় দুটো উৎস তৈরি পোশাক রপ্তানি ও রেমিটেন্স প্রবাহ ধারাবাহিকভাবে কমতে থাকায় বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাব ভারসাম্যে ২.৯ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি তৈরি হবে বলেও মনে করছে সংস্থাটি।
এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে বিশ্ব ব্যাংকের পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার চলতি বছরে ২-৩ শতাংশের মধ্যে নেমে আসতে পারে।
বিশ্ব ব্যাংকের ওই পূর্বাভাস সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় মন্তব্য করে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল তখন বলেছিলেন, মহামারীর প্রভাবে প্রবৃদ্ধি কমলেও তা ৬ শতাংশের ওপরে থাকবে। মহামারীর অভিঘাত মোকাবেলায় সরকার আর্থিক প্রণোদনা আর সামাজিক নিরাপত্তায় যে তহবিল ঘোষণা করেছে, তার আকার ইতোমধ্যে এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। টাকার এই অংক বাংলাদেশের জিডিপির ৩ দশমিক ৭ শতাংশের মত।
ভাইরাসের ধাক্কা সামাল দিতে সরকারকে ১.৬৮ বিলিয়ন ডলার ঋণ নিতে হচ্ছে, যার মধ্যে ৭৩২ মিলিয়ন ডলার আসবে আইএমএফের কাছ থেকে।।

পাঠকের মন্তব্য