আম্পান ঘূর্ণিঝড়ে ৬ কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, আম্পান ঘূর্ণিঝড়ে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় ৬ কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তিনি আজ (শনিবার) দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার কাকদ্বীপে মহকুমা প্রশাসকের দফতরে আয়োজিত  বৈঠকে ওই মন্তব্য করেন।

মমতা বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বিভিন্ন জেলার ৬ কোটি মানুষ। কেবলমাত্র দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিভিন্ন এলাকায় ৭৩ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ১০ লাখেরও বেশি বাড়ি ভেঙেছে। ডায়মন্ডহারবারেই ভেঙেছে দেড় লাখ বাড়ি। এই জেলার ৫৬ কিলোমিটার নদীবাঁধ ভেঙে গেছে। বর্ষার আগে বাঁধ মেরামত করা না গেলে আরও বড় সমস্যা সৃষ্টি হবে। এটা জাতীয় বিপর্যয়ের থেকেও বড় ক্ষতি। সেজন্য এখন পুনর্গঠনের উপরেই সবচেয়ে বেশি জোর দিতে হবে।’

মমতা বলেন, ‘এটা এতবড় বিপর্যয় যে জন্মের পর থেকে এমন বিপর্যয় দেখিনি। উড়িষ্যায় ফণীর বিপর্যয়ে বিদ্যুৎ পুনরুদ্ধার করতেই কেবল দেড় মাস সময় লেগেছিল।’

তিনি বলেন, ‘আজ ভুটানের প্রধানমন্ত্রী আমাকে ফোন করেছিলেন। সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন। গতকাল বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ফোন করেছিলেন, হাসিনাজীর সঙ্গে কথা হয়েছে।’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও বলেন, ‘বর্তমানে চার ধরনের চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে হচ্ছে আমাদের। করোনা পরিস্থিতি, লকডাউন, পরিযায়ী শ্রমিক ও প্রাকৃতিক বিপর্যয়। একদিকে সরকারের যখন আয় নেই, তখন আম্পানের তাণ্ডবে এক লাখ কোটি টাকার ক্ষতি হয়ে গেছে। এমনিতেই কোভিডের মোকাবিলা করতে গিয়ে আমাদের হাতে বেশি টাকা নেই। এজন্য বড় কোন প্রোজেক্ট হাতে নেওয়া যাবে না। ফলে খুব সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে।’

বিদ্যুৎহীন এলাকাগুলোতে খাবার পানি সরবরাহ করার জন্য ১৫০ টি জেনারেটর ভাড়া করে ব্যবহার করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন।

পাঠকের মন্তব্য