‘রাজনীতি নয় সিনেমা করতে এসেছি ’

প্রেসটাইম২৪: ইন্ডাস্ট্রি চালাতে হলে অনেক শিল্পী প্রয়োজন। আর আমি মনে করি নায়ক-নায়িকার সংকটও রয়েছে এখানে। তাই নতুন মুখ বাড়ানো দরকার। আরেকটা বিষয়, কাজ করতে এসে দেখেছি এখানে পেশিশক্তির বেশি জোর। কিন্তু আমি তো সিনেমা করতে এসেছি রাজনীতি নয়। আর সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে গ্রুপিংয়ের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন শিল্পীরা-কথাগুলো বলছিলেন ঢালিউডের ব্যস্ত নায়ক বাপ্পি চৌধুরী।
‘ভালোবাসার রঙ’ চলচ্চিত্র দিয়ে অভিনয় জীবনের পথ চলা শুরু করেন তিনি।

এরই মধ্যে ববি, মাহি, আঁচল ও মিমের বিপরীতে কাজ করেছেন। সবশেষ মনতাজুর রহমান আকবরের ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় তার। এ ছবিতে বাপ্পির বিপরীতে অভিনয় করেন বিদ্যা সিনহা মিম। আর সামনে মুক্তি পাবে বেশ কয়েকটি ছবি। এছাড়া নতুন ছবি নিয়েও ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এই অভিনেতা। বাপ্পি বলেন, বেলাল সানির ‘ডেঞ্জার জোন’, গাজী জাহাঙ্গীরের ‘প্রেমের বাঁধন’, শাহনেওয়াজ শানুর ‘পলকে পলকে তোমাকে চাই’, এম সাখাওয়াতের ‘আসমানী’ ও তারেক শিকদারের ‘দাগ’ নামের ছবিগুলোর কাজ শেষ করেছি।

এছাড়া পরিচালক কমল সরকারের ‘পাগলামি’ নামে একটি ছবির বেশ কিছু অংশের কাজ করেছি। এ ছবিতে আমার বিপরীতে কলকাতার একজন অভিনেত্রী অভিনয় করেছেন। এসবের পাশাপাশি রাহুল রওশনের ‘বেসামাল’ নামে একটি ছবিতে কাজ করার বিষয়ে কথা চলছে। ছবিটিতে আমার বিপরীতে অভিনয় করবেন নিঝুম রুবিনা। সব কিছু ঠিক থাকলে মার্চে এ ছবির কাজ শুরু হবে। ‘ঢাকা অ্যাটাক’, ‘শিকারি’, ‘নবাব’, ‘সুলতানা বিবিয়ানা’-এ জাতীয় ভালো কিছু ছবি হঠাৎ হঠাৎ মুক্তি পেলেও সব সময় তা দর্শক দেখতে পাচ্ছেন না। এমনকি হিট ছবির সংখ্যাও কম।

এটা সিনেমা বাজারকে খারাপের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে বাপ্পি বলেন, আমাদের এখানে তো গ্রুপিংয়ের কারণে অনেক ভালো ছবির কাজ থেমে থাকে। পাশাপাশি ওপারের শিল্পীরা এপারের বাজারে এসে কাজ করছে। ওখানে ভালো বাজার নেই বলেই তারা এখানে কাজ করছে। আমি তো মনে করি আমাদের এখানে সিনেমার বাজার বেশ ভালো। আর এখানে যাদের পাওয়ার আছে তারাই তো ইন্ডাস্ট্রি চালান। এখানে অভিনেতা হিসেবে বলার কিছু নেই আমার। তবে আমি ভালো কাজ করার চেষ্টা সবসময়ই করছি। অনেকের তো দাবি দেশীয় ছবির হিট সংখ্যা তুলনামূলক কম। অভিনেতা হিসেবে এটা কিভাবে দেখছেন? এর জবাবে বাপ্পি বলেন, দেশীয় ছবিগুলো যথেষ্ট সহযোগিতা পাচ্ছে না।

কারণ প্রযোজকদের কাছ থেকে ঠিকমত বাজেট পাওয়া যাচ্ছে না। তাই আমাদের এখানে বড় বাজেটের ছবি তেমন নির্মাণ হচ্ছে না। এখন তো ছবি নির্মাণের ক্ষেত্রে বাজেট অনেক বড় একটি বিষয়। সামনে বাপ্পি অভিনীত বেশ কয়েকটি ছবি মুক্তি পাবে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সামনে আমার অভিনীত বেশ কিছু ছবি মুক্তি পাবে। সেগুলো নিয়ে আমি খুব আশাবাদী।

কারণ এসব ছবিতে ভিন্ন চরিত্রে দর্শক আমাকে দেখতে পাবেন। একটির সঙ্গে আরেকটির কোনো মিল নেই। নতুন অনেক মেধাবী পরিচালক আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছেন। তারা ঠিকভাবে মৌলিক গল্প নিয়ে ছবি বানালে আমার বিশ্বাস দর্শক আবারো সিনেমা হলে ভিড় করবেন। নতুন বছরকে ঘিরেও রয়েছে বাপ্পির নানান পরিকল্পনা। সেই বিষয়ে জানতে চাইলে এক কথায় তিনি বলেন, আমি বেশ কয়েকবার ফিল্ম পলিটিক্সের শিকার হয়েছি। এসব নিয়ে আর বেশি কিছু বলতে চাই না। তবে নতুন বছরে সিনেমার জন্য ভালো বাজার চাই। নোংরা রাজনীতি নিয়ে কাজ করা যায় না।

আমি রাজনীতিবিহীন একটা ভালো জায়গা পেতে চাই। যেখানে শিল্পীরা ভালোভাবে কাজ করতে পারবে এবং সকলের সহযোগিতা পাবে। দর্শক তো বড় বিচারক, তাই দর্শকই বলে দিবে কে টিকে থাকবে, কে ইন্ডাস্ট্রিকে গুডবাই জানাবে।