সুষ্ঠু নির্বাচন করতে আলোচনার বিকল্প নেই: নজরুল

অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সরকারের আলোচনার কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেছেন, ‘বিএনপি একটি সুষ্ঠু ও অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন চায়। নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। এজন্যই আলোচনা অত্যন্ত জরুরি হয়ে পড়েছে।’

সোমবার দুপুরে রাজধানীর তোপখানা রোডে শিশু কল্যাণ পরিষদের হল রুমে ‘গুম-খুনের রাজনীতি এবং বাংলাদেশের ভবিষ্যত’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন নজরুল ইসলাম খান।

বাংলাদেশ লেবার পার্টি এ আলোচনা সভার আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন আয়োজক সংগঠনের ভাইস চেয়ারম্যান মো. ফারুক রহমান। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, ন্যাপের আজহারুল ইসলাম, লেবার পার্টির যুগ্ম মহাসচিব মাহমুদ খান, অধ্যাপক মহসিন ভুঁইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল মামুন, আনোয়ার হোসেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘ফেব্রুয়ারিতে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন গঠনের ব্যাপারে খুব দ্রুত উদ্যোগ নিতে হবে। সেজন্য সংলাপ-আলোচনার বিকল্প নেই। কারণ বিএনপি একটি অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন চায়।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন গঠনের ব্যাপারে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ১৩ দফা প্রস্তাব উপস্থাপন করেছেন। সেই প্রস্তাবের আলোকে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনা হয়েছে।’

বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘বিএনপি গুম-খুনের রাজনীতি চায় না। পছন্দ করে না। আমরা মনে করি না (গুম-খুন) এই ধরনের রাজনীতি জনগণের জন্য কল্যাণকর। বরং গুম-খুনের রাজনীতি হলো জোর করে ক্ষমতায় টিকে থাকা। যা অন্যায়, অনাচার। এটা বন্ধ করতে হবে। কারণ দেশের মানুষ শান্তি চায়, নিশ্চিন্তে জীবনযাপন করতে চায়। আর এটা সম্ভব হবে শুধু মাত্র জনগণের দ্বারা নির্বাচিত এবং জনগণের কাছে দায়বদ্ধ সরকার প্রতিষ্ঠায়।’

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নাসিক নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বাহ্যিকভাবে দেখা হলেও নির্বাচন নিয়ে একটি প্রশ্ন উঠেছে। তাই নির্বাচন কমিশনের উচিৎ হবে জনমনের সন্দেহ দূর করার উদ্যোগ নেয়া। আমরা আশা করছি কমিশন সেই উদোগ নেবে।’