‘সবকিছু ঠিক থাকলে নতুন সংগঠনের ঘোষণা আসবে শিগগিরই’

মৌসুমী। ঢালিউডের জনপ্রিয় মুখ। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই একের পর এক সফল ছবি উপহার দিয়ে যাচ্ছেন। বর্তমানে বেশকিছু ছবির কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছেন ঢাকাই ছবির এই প্রিয়দর্শিনী। কয়েকদিন আগেই তিনি শেষ করেছেন মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ ও একে সোহেলের ‘পবিত্র ভালোবাসা’ নামে দুটি ছবির কাজ। আর উত্তম আকাশের ‘আমি নেতা হব’ ছবির কাজও সবে শেষ করেছেন। তবে খুব বেশি ছবিতে কাজ করছেন না তিনি। বুঝে শুনেই নতুন ছবির কাজ হাতে নিচ্ছেন। মৌসুমী মানবজমিনকে বলেন, বর্তমানে শুটিং শেষ করার পর দুটি ছবির ডাবিংয়ের কাজ নিয়ে ব্যস্ত রয়েছি। ছবি দুটি হচ্ছে ‘পবিত্র ভালোবাসা’ ও ‘আমি নেতা হব’। পাশাপাশি নতুন ছবির কাজ নিয়েও কথা হচ্ছে। চাইলে তো প্রতিদিনই কাজ করা যায়। কিন্তু এভাবে কাজ করে কি লাভ ? ‘আমি নেতা হব’ ছবিতে কি ধরনের চরিত্রে অভিনয় করছেন জানতে চাইলে মৌসুমী বলেন, এ ছবিতে আমি শাকিবের বড় বোনের চরিত্রে অভিনয় করছি। এর আগেও দুটি ছবিতে শাকিবের বড় বোনের চরিত্রে অভিনয় করেছিলাম। ছবি দুটি বেশ ভালো ব্যবসা করেছিল। আর ছবিতে আমার স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করছেন ওমর সানি। রাজনীতি ও পরিবারকে ঘিরেই মূলত এ ছবির কাহিনী। ‘আমি নেতা হব’ ছবিটি দর্শক পছন্দ করবে বলে আশা করছি। এদিকে একে সোহেলের ‘পবিত্র ভালোবাসা’ ছবিতে  হিন্দুদের পঞ্চায়েত প্রধান মায়াদেবী নামে একটি চরিত্রে অভিনয় করছেন মৌসুমী। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের বেশকিছু লোকেশনে এ ছবির কাজ হয়েছে। ছবিতে মৌসুমীর পাশাপাশি ফেরদৌস, মাহিয়া মাহি ও রোকন নামে নতুন একজন অভিনেতা কাজ করেছেন। ছবিটি নিয়ে মৌসুমী বলেন, এ ছবির গল্প মৌলিক। এর আগে একে সোহেল ভাইয়ের ‘খায়রুন সুন্দরী’ ছবিতে আমার এবং ফেরদৌসের অভিনয় দর্শকের কাছে প্রশংসিত হয়েছিল। এই চলচ্চিত্রটিতেও কাজ করে বেশ ভালো লাগছে। বর্তমানে ছবির ডাবিংয়ের কাজও শেষ পর্যায়ে। আমার ধারণা নতুন গল্প, নতুন চরিত্র সবমিলিয়েই দর্শকের কাছে ভালোলাগবে চলচ্চিত্রটি। মৌসুমী অভিনীত ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ ছবিটি এরইমধ্যে বিনাকর্তনে সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে। এ ছবিতে ডিপজলের বিপরীতে অভিনয় করেছেন মৌসুমী। এ ছবিটি নিয়েও বেশ আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন এ অভিনেত্রী। তিনি বলেন, গ্রাম বাংলার মানুষের ছবি ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’। আমার বিশ্বাস, এ ছবির গান ও গল্প দর্শকের মনে জায়গা পাবে। অনেকদিন দর্শকরা এ ধরনের ছবি দেখেননি। খুব শিগগিরই ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে। সিনেমার কাজের বাইরে উত্তরার ৩ নম্বর সেক্টরের ১৮ নম্বর রাস্তার ৩৯ নাম্বার বাসার ৪র্থ তলায় একটি অভিজাত রেস্তোঁরা দিয়েছেন মৌসুমী। আর নতুন এই রেস্তোঁরার সিইও হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সানী-মৌসুমীর ছেলে ফারদিন। এ রেস্তোঁরার নাম ‘মেরি মন্টানা’। অবসরে সেখানে মাঝে মাঝে সময় কাটাতে পছন্দ করেন মৌসুমী। প্রসঙ্গত, মৌসুমী এ বছরের মার্চ মাসে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যপদে জেতার পরও শপথ গ্রহণ করেননি। বরং এই পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে অব্যাহতি পত্র পাঠান শিল্পী সমিতির সভাপতি ও চলচ্চিত্রের খল অভিনেতা মিশা সওদাগরকে। সম্প্রতি জানা যায়, অন্য একটি ফেডারেশনে যোগ দিচ্ছেন  মৌসুমী, ওমর সানি, শাকিব খানসহ আরো অনেক শিল্পী। এ বিষয়ে জানতে চাইলে চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী বলেন, হ্যাঁ। নতুন একটি সংগঠন হতে যাচ্ছে। আর এই নতুন সংগঠন হবে শিল্পী, কলাকুশলী, বুকিং এজেন্ট, হলমালিকসহ সবার। নাটকের অভিনেতা, অভিনেত্রীসহ মিডিয়াতে কাজ করে এমন যে কোনো শিল্পী এখানে অংশ নিতে পারবে। ভারতে ‘ইমপা’ নামে যে সংগঠন রয়েছে, ঠিক এমন একটি সংগঠন হবে এটা। অনেকেই এখানে সদস্য হতে ইতিমধ্যেই ইচ্ছে পোষণ করেছেন। সবকিছু ঠিক থাকলে নতুন সংগঠনের ঘোষণা আসবে শিগগিরই।