কাতারে সেনা মোতায়েন করছে তুরস্ক

তুরস্ক পার্লামেন্ট কাতারে সৈন্য মোতায়েন করার অনুমতি দিয়েছে। বুধবার পার্লামেন্টে এ-সংক্রান্ত একটি বিল পাস হয়েছে। এতে ২৪০ এমপি পক্ষে ভোট দিয়েছেন। প্রধানত রজব তাইয়্যিপ এরদোগানের একেপিই এর পক্ষে ভোট দিয়েছে। আর জাতীয়তাবাদী এমএইচপি এর বিরোধিতা করে।
বিলটি গত মে মাসে প্রথম খসড়া হিসেবে উত্থাপিত হযেছিল।
সৌদি আরবসহ বেশ কয়েকটি দেশ কাতারের সাথে কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করার প্রেক্ষাপটে তুর্কি পার্লামেন্ট এই সিদ্ধান্ত নিল।
দীর্ঘ দিন ধরেই তুরস্কের মিত্র হিসেবে ছিল কাতার। ফলে এই কঠিন পরিস্থিতিতে কাতারের পাশে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তুরস্ক। দেশটি কাতারে একটি সামরিক ঘাঁটি প্রতিষ্ঠা করছে। উল্লেখ্য, মধ্যপ্রাচ্যের বৃহত্তম মার্কিন বিমান ঘাঁটিও কাতারে অবস্থিত।
সন্ত্রাসে মদত দেয়ার অভিযোগে সৌদি আরব, মিসর সংযুক্ত আরব আমিরা, বাহরাইনসহ কয়েকটি দেশ কাতারের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে। কাতার দৃঢ়ভাবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। আরব দেশগুলোর এই পদক্ষেপের তীব্র বিরোধিতা করেছেন রজব তাইয়্যিপ এরদোগান।
তুরস্ক ২০১৪ সালে সামরিক ঘাঁটি স্থাপনের জন্য কাতারের সাথে চুক্তি করে। ২০১৬ সালেই ওই সময়ের প্রধানমন্ত্রী আহমদ দাভাতুগ্লু মোতায়েন করা প্রায় ১৫০ সৈন্য পরিদর্শন করেছিলেন।
২০১৫ সালে কাতারে নিযুক্ত তুর্কি রাষ্ট্রদূত আহমদ দেমিরক বলেছিলেন, তুরস্ক দেশটিতে প্রায় ৩০০০ সৈন্য মোতায়েন করতে চায়।
সূত্র : আল জাজিরা