বাংলাদেশ ও মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনায় শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব

বাংলাদেশ, মুসলিম উম্মাহ ও বিশ্বের শান্তি কামনা করে শেষ হয়েছে তাবলিগ জামাতের ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত।

আজ (শনিবার) বেলা পৌনে ১১টার দিকে টঙ্গীর তুরাগ তীরে ইজতেমার ময়দানের খিত্তা, রাজপথ, আশপাশের ভবন মোনাজাতে শরিক হন মুসল্লিরা। এই ধাপে জোবায়েরপন্থী আলেম-ওলামা কওমিপন্থী তাবলিগ জামাতের অনুসারী মুসল্লিরা অংশ নেয়।  মোনাজাত পরিচালনা করেন তাবলিগের শূরা সদস্য মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ জোবায়ের।

ইজতেমার মোনাজাতে যোগ দিতে হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসুল্লি নানা বিড়ম্বনাকে উপেক্ষা করে ঢাকাসহ আশপাশের জেলা থেকে সকালেই টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে ছুটে আসে। আগের দিন জুমার দিন হওয়ায় সকাল থেকেই টঙ্গী ও আশপাশ এলাকার লাখো মুসুল্লির ঢল নামে টঙ্গীর তুরাগ তীরে। নামাজের আগেই ইজতেমার পুরো প্যান্ডেল ও ময়দান কানায় কানায় ভরে যায়।

শুক্রবার বাদ ফজর পাকিস্তানের মাওলানা জিয়াউল হকের আম বয়ানের মধ্য দিয়ে ইজতেমার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। তবে এর আগেরদিন বৃহস্পতিবার আসরের পরই শুরু হয়েছিল ইজতেমার কার্যক্রম।

আগামীকাল (রোববার) বাদ ফজর দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে মাওলানা সাদ অনুসারীদের ইজতেমা। সোমবার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে তা শেষ হবে।

এদিকে, এবারের মতো ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমাও দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হবে। আজ আখেরি মোনাজাতের পর আগামী ২০২০ সালের ২ পর্বের ইজতেমার তারিখ মাইকে ঘোষণা করা হয়।

তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বি প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমান বলেন, আগামী বছরের ইজতেমার প্রথম ধাপের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ১০, ১১ ও ১২ জানুয়ারি এবং দ্বিতীয় ধাপের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ১৭, ১৮ ও ১৯ জানুয়ারি।

১৯৬৭ সাল থেকে টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে বিশ্ব ইজতেমা নিয়মিত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। তবে মানুষের যানজট দুর্ভোগ কাটাতে ২০১১ সাল থেকে বিশ্ব ইজতেমা দুই পর্বে ভাগ করে আয়োজন করা হয়। তাবলিগ জামায়াতের চলমান বিবাদের কারণে এবারের ইজতেমা আয়োজন বিলম্বিত হয়েছে।