জামায়াত থেকে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগ, বহিস্কার মঞ্জু!

মাত্র কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে বাংলাদেশের প্রধান ইসলামপন্থী রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতৃত্বে অসন্তুষ দেখা দিয়েছে। শুক্রবার বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারি সেক্রেটারী আব্দুর রাজ্জাকের ব্যক্তিগত সহকারী কাউসার হামিদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। যুক্তরাজ্য থেকে শুক্রবার সকালে পাঠানো একটি চিঠিতে দলের আমির মকবুল আহমদের কাছে আব্দুর রাজ্জাক তাঁর পদত্যাগপত্র পেশ করেন। তারপর থেকেই দেলের বিভিন্ন স্থরে অসন্তুষ দেখা যায়। এদিকে শুক্রবার রাতে সদস্য পদ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে ছাত্র শিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ঢাকা মহানগরীর নেতা মজিবুর রহমান মঞ্জুকে।

শনিবার সকালে নিজের ফেসবুকে সদস্য পদ থেকে বহিস্কারের কথা জানিয়ে স্ট্যাটাস দেন মঞ্জু।

জামায়াতে ইসলামের ১৯৭১ সালের ভুমিকা নিয়ে সংস্কার পন্থীরা জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়াসহ যে সকল দাবি করে আসছিলো জামায়াতের সংখ্যাগরিষ্ঠের সিদ্ধান্তে তাদের দাবি না মানার পক্ষে যাওয়ায় দল থেকে পদত্যাগ করেন আব্দুর রাজ্জাক।

একই দাবিতে জামায়াতে রাজনৈতিক সংস্কারের যৌক্তিকতা, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ভূমিকা প্রসঙ্গে মঞ্জুর সুস্পষ্ট মত ছিল যে, জামায়াতে প্রয়োজনীয় সংস্কার না হলে বাংলাদেশের রাজনীতিতে জামায়াতের ভবিষ্যৎ অন্ধকার। তার এরূপ খোলামেলা মত নিয়ে জামায়াতের নেতৃবৃন্দের মাঝে বিব্রতকর পরিস্থিতি তৈরী হয়। যার কারেন দলের কাঠামো আরো শক্তিশালী করতে এবং প্রশ্নবৃদ্ধ না হতেই দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে মজিবুর রহমান মঞ্জুকে।

ধারনা করা হচ্ছে সিগ্রই দলটির কেন্দ্রীয়, জেলা ও মহানগর পর্যায়ে বড় ধরনের পরিবর্তন আসতে পারে।

গত কয়েক বছর যাবত দলের নাম পরিবর্তনসহ যে সকল সংস্কারের কথা গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছিল দলের নেতৃত্ব পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে সে আলোচনা আবারো গণমাধ্যম এবং রাজনৈতিক মাঠে নতুন করে আলোচনা সৃষ্টি করবে।