সেন্ট মার্টিনে রাত্রিযাপনে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হচ্ছে না

পর্যটকদের ভারে বিপন্ন হতে চলা সেন্ট মার্টিন দ্বীপে আগামী ১ মার্চ থেকে রাতযাপনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল সরকার। জীববৈচিত্র্যে পূর্ণ দ্বীপটি রক্ষায় গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি গত ১৩ সেপ্টেম্বর এ নিষেধাজ্ঞা জারি করে। তবে তিন মাস না পেরোতেই এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসছে সরকার। স্থানীয়দের কর্মসংস্থান এবং হোটেল-মোটেলে বিনিয়োগ করা ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসনে বিকল্প ব্যবস্থা না হওয়া পর্যন্ত সেন্ট মার্টিনে পর্যটকদের রাতযাপনে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা হবে না।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সেপ্টেম্বরে আরো দুটি বৈঠক করেছে সেন্ট মার্টিন দ্বীপ রক্ষায় গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, সেন্ট মার্টিন যেতে হলে পর্যটকদের আগে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এ রেজিস্ট্রেশন হবে জাতীয় পরিচয়পত্রের বিপরীতে। এজন্য নির্দিষ্ট একটি ফি-ও নির্ধারণ করা হবে। এতে কারা দ্বীপটিতে যাচ্ছেন এবং রাতযাপন করছেন, সে তথ্য যেমন সংরক্ষিত থাকবে, তেমনি একই পর্যটকের বারবার সেন্ট মার্টিন যাওয়াও রোধ করা যাবে।

এ প্রসঙ্গে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহিবুল হক জানান, সেন্ট মার্টিনে পর্যটকদের রাতযাপন নিষিদ্ধ করা না হলেও সেটা সীমিত করা হবে। কারণ দ্বীপটির স্থানীয়দের কর্মসংস্থান মূলত বেড়াতে যাওয়া পর্যটকদের ঘিরেই চলে আসছে। এছাড়া সেখানে অনেকগুলো হোটেল-মোটেলে বিনিয়োগ রয়েছে ব্যবসায়ীদের। পর্যটকদের রাতযাপন হঠাৎ বন্ধ করে দিলে তাদের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে। এ কারণে বিকল্প ব্যবস্থা চিন্তা করা হচ্ছে। দ্বীপসংশ্লিষ্টদের পুনর্বাসনের পরই রাতযাপন বন্ধের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।