ভিকারুননিসার শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তি দাবিতে বিক্ষোভ

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার শ্রেণিশিক্ষিকা হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। আজ সকাল ১১টা থেকে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান গেটে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ শুরু করে। একইসঙ্গে ওই শিক্ষিকা মুক্ত করা না হলে কাল বোরবার থেকে সকল ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে প্লাকার্ড হাতে নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দেয়। মুক্তি চাই, মুক্তি চাই, হাসনা হেনার মুক্তি চাই; নির্দোষ নির্দোষ, আমার মা নির্দোষ; ফিরব না, ফিরব না, মাকে ছাড়া ফিরব না; আমার মায়ের অপমান, মানব না মানব না; সুষ্ঠু তদন্ত চাই, আমার মায়ের মুক্তি চাই, বলে স্লোগান দিচ্ছে তারা।
বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা বলছেন আমাদের শ্রেণি শিক্ষক হাসনা ম্যাডাম অত্যন্ত ভালো শিক্ষক। কিন্তু একটা ষড়যন্ত্র করে তাকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে বন্দি রেখেছে। আমরা তার মুক্তি চাই।
শিক্ষার্থীরা জানায়, অরিত্রী আত্মহত্যার ঘটনায় একটা তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কিন্তু কমিটির তদন্তের আগেই ম্যাডামকে গ্রেপ্তার করা সম্পূর্ণ বেআইনি ছিল।

কারণ এখনও প্রমাণও হয়নি যে তিনি দোষী। অথচ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্ততারেরও দাবি জানিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

উল্লেখ্য, গত ৫ই  ডিসেম্বর রাত ১টার দিকে উত্তরার একটি হোটেল থেকে শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনাকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল।
এর আগে ৪ঠা ডিসেম্বর অরিত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় তার বাবা দিলীপ অধিকারী বাদী হয়ে পল্টন থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার ৩ নম্বর আসামি হাসনা হেনা। বাকি দুই আসামি হলেন ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস ও প্রভাতী শাখার প্রধান শিক্ষক জিন্নাত আরা। পরে বুধবার বিকেলে মামলাটি পল্টন থানা থেকে অধিকতর তদন্তের জন্য ডিবিতে পাঠানো হয়।