গাজা উপত্যকার ব্যাপারে মার্কিন কর্মকর্তারা মিথ্যাচার করছেন: আব্বাস

অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার ব্যাপারে মার্কিন সরকারের গৃহিত পরিকল্পনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। তিনি বলেছেন, ইসরাইল অবরুদ্ধ গাজার মানবিক সংকট নিরসনের পরিকল্পনা পেশ করতে গিয়ে মার্কিন কর্মকর্তারা মিথ্যাচার করেছেন।

জর্দান নদীর পশ্চিম তীরের রামাল্লা শহরে ফিলিস্তিন কেন্দ্রীয় পরিষদের বৈঠকে মাহমুদ আব্বাস বলেন, সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা গাজা উপত্যকার জনগণের জীবনমান উন্নয়ন করার যে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তা সর্বৈব মিথ্যা।

তিনি বলেন, গাজার ওপর মার্কিন সমর্থন নিয়ে ইহুদিবাদী ইসরাইল অবরোধ আরোপ করার পর সেখানকার মানবিক পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। মাহমুদ আব্বাস বলেন, ‘ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য মার্কিনীদের দরদ এখন উথলে উঠেছে। তারা আসলে মিথ্যাবাদি।’

ফিলিস্তিনি স্বাশসন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট বলেন, মার্কিন কর্মকর্তারা যদি গাজা উপত্যকার জন্য ত্রাণ পাঠানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করেও সেটা করা হবে আমেরিকারই স্বার্থে; ফিলিস্তিনি জনগণের স্বার্থে নয়।

গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি ধ্বংসযজ্ঞ (ফাইল ছবি)

গত জুন মাসে মার্কিন কর্মকর্তারা গাজা উপত্যকায় পুঁজি বিনিয়োগ করতে আরব রাজা-বাদশাহদের প্রতি আহ্বান জানান। তারা বলেন, ওয়াশিংটন মধ্যপ্রাচ্যে কথিত শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পরিকল্পনা পেশ করার আগে গাজা পরিস্থিতির উন্নয়নের জন্য সেখানে পুঁজি বিনিয়োগ জরুরি। সে সময় ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষ এর প্রতিক্রিয়ায় বলেছিল, বায়তুল মুকাদ্দাস প্রশ্নে ফিলিস্তিনিদের কাছ থেকে অধিকতর ছাড় আদায়ের লক্ষ্যে আমেরিকা গাজা উপত্যকার বন্ধু সাজার চেষ্টা করছে।

ইহুদিবাদী ইসরাইল ২০০৭ সাল থেকে গাজা উপত্যকার ১৫ লাখ অধিবাসীকে কঠোর অবরোধের মধ্যে রেখেছে। এ ছাড়া, ২০০৮ সাল থেকে ওই উপত্যকার ওপর তিনটি যুদ্ধ চাপিয়ে দিয়েছে তেল আবিব। পাশাপাশি গাজার প্রতিরোধ যোদ্ধাদের ওপর প্রায়ই বিমান হামলা চালায় ইহুদিবাদী সেনারা।