আমায় দলে নিয়ে আইপিএলকে বাঁচিয়েছেন শেবাগ

প্রেসটাইম২৪:ক্যারিবিয় ব্যাটিং দানব ক্রিস গেইল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) সর্বোচ্চ ৬টি সেঞ্চুরির মালিক। তিনি পঞ্চম সেঞ্চুরিটি করেছিলেন ২০১৫ সালে। মাঝখানে ফর্মটা খারাপ গিয়েছিল। মাঝের ২ বছরে ৪টি সেঞ্চুরি করেছেন বিরাট কোহলি।

তবে বৃহস্পতিবার ষষ্ঠ সেঞ্চুরিটি তুলে নিয়ে নিজেকে প্রমাণ তো করেছেনই, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সেঞ্চুরিয়ান কোহলির সাথে পার্থক্যও বাড়িয়ে নিয়েছেন। অথচ কোহলির দল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙালুরুই ছিল তার ঠিকানা। এবছর দলটি তাকে ছেড়ে দেয়। এরপর গেইলকে দলে নেয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। সেঞ্চুরি করে দলের পরিচালক বিরেন্দর শেবাগের উদ্দেশ্যে বলেছেন, তাকে দলে নিয়ে শেবাগ আইপিএলকে বাঁচিয়েছেন।

ফুটবলে জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ, ক্রিকেটে গেইল। এই খেলোয়াড়দের দাম্ভিকতা আসে তাদের প্রতিভা থেকেই। ব্যাট হাতে যেমন নির্লিপ্ত ভঙ্গিতে বল মাঠের বাইরে পাঠাতে পারেন, মুখের ভাষায় সমালোচকদের জবাবও দিতে পারেন গেইল। বৃহস্পতিবার তার সেঞ্চুরিতে ভর করে দল হারিয়েছে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদকে। এবারের আইপিএলেরই প্রথম সেঞ্চুরি।

পর পর দুই ম্যাচে ম্যাচ সেরার পুরস্কার। তাই এই ৩৮ বছর বয়সী ক্যারিবিয়ান বলেছেন তার কারো কাছে প্রমাণ করার কিছু নেই, বরং আইপিএলই ধন্য তাকে পেয়ে, ‘অনেক মানুষই বলতে পারে ক্রিসের অনেক কিছু প্রমাণ করার আছে। কারণ প্রথম দিকে নিলামে তাকে কেউ কেনে নি। তবে আমি বলতে পারি- বিরেন্দর শেবাগ, তুমি আইপিএলকে বাঁচিয়েছ আমায় দলে নিয়ে।’

টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ রান তার (১১২৩৫)। মোট চার (৮৪৩) ও ছয় (৮৩৪) প্রায় সমান। আইপিএলেও সর্বোচ্চ ছয় (২৮০) তার। আরো ভুরি ভুরি রেকর্ডের মালিক বাঁহাতি এই ক্যারিবিয় ওপেনার। নিজেকে নতুন করে প্রমাণের কিছুই নেই তার। তবে প্রতিপক্ষকে বলেছেন তার নামটিকে সম্মান দিতে, ‘আমি এখানে কিছু প্রমাণ করতে আসিনি। আমি আগেই সব করেছি। সেসব করেই এখানে এসেছি। নামটিকে সম্মান দেয়া শিখুন। এবং সব কোচরাও- আপনারাও সম্মান করুন।’