সার্চ কমিটি: বিএনপির আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া ও আওয়ামী লীগের পাল্টা মন্তব্য

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি কর্তৃক গঠিত সার্স কমটি প্রসঙ্গে হতাশা ব্যক্ত করে আজ আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে দেশের অন্যতম বিরোধী দল বিএনপি। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আজ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, একটি নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনে বিএনপি’র চেয়ারপারসন বেগম খলেদা জিয়ার প্রস্তাবকে অগ্রাহ্য করে ছয় সদস্যের সার্স কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, সার্চ কমিটি গঠনে রাজনৈতিক দলগুলোর দাবির কোনো প্রতিফলন নেই। যাদের দিয়ে সার্চ কমিটি গঠন করা হয়েছে, তাদের মাধ্যমে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ, সৎ ও সাহসী ব্যক্তিগণ আগামী প্রধান নির্বাচন কমিশনার কিংবা সদস্য হবেন এমনটা আশা করা বাতুলতা।

তিনি বলেন,  ক্ষমতাসীনদের অনুগত ব্যক্তিকে সার্চ কমিটির প্রধান করায় তার মাধ্যমে পূর্বের ‘রকিবউদ্দিন’ কমিশনের মতোই সরকার অনুগত ও মেরুদণ্ডহীন কমিশন আসবে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সার্স কমিতি গঠন প্রসঙ্গে ২০-দলীয় জোটের  অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এস এম এম  আলম রেডিও তেহরানকে বলেন, রাষ্ট্রপতি  তার দলীয় দৃষ্টিভঙ্গির বাইরে যেতে পারেন নি।  তার বাছাই করা সার্স কমিটি দিয়ে একটি নির্দলীয় এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করে  জনগনের কাঙ্খিত নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব হবে বলে তিনি মনে করেন না।

তবে আইন বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, রাষ্ট্রপতির গঠিত সার্চ কমিটি নিরপেক্ষ। যারা সার্চ কমিটির সমালোচনা করছে তাদের দলীয়করণের অভ্যাস রয়েছে।

আওয়ামী লীগ  নেতা তোফায়েল আহমেদ বলেছেন,  “সার্চ কমিটিকে বিতর্কিত করলে ক্ষতিটা কিন্তু বিএনপিরই হবে। কারণ, পরে দেখা যাবে যেটাকে বিতর্কিত করেছে, তার অধীনেই নির্বাচনে গেছে।

ওদিকে, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, নির্বাচন কমিশনের গঠন প্রক্রিয়াকে বিতর্কিত করার জন্য সার্চ কমিটি নিয়ে বিএনপি প্রশ্ন তুলেছে।

 আজ শুক্রবার রাজধানিতে শ্রমিক লীগ আয়োজিত এক  অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘বিএনপি সার্চ কমিটি নয়, নির্বাচন কমিশন গঠন প্রক্রিয়াকে বিতর্কিত করার জন্য বিভ্রান্তিমূলক কথা বলছে। দেশের জনগণের প্রতি তাদের কোন আস্থা নেই।’