সিরিয়ায় স্টিলথ যুদ্ধবিমান মোতায়েন রাশিয়ার

সিরিয়ার অত্যাধুনিক প্রযুক্তির স্টিলথ যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে রাশিয়া। রুশ সংবাদমাধ্যম ও অনলাইনে ছড়িয়ে পড়া কিছু ভিডিও থেকে জানা গেছে বিষয়টি। রাশিয়া তাদের স্টিলথ প্রযুক্তির দু’টি সু-৫৭ যুদ্ধ বিমান সিরিয়ায় মোতায়েন করেছে বলে এমন একটি সময়ে খরব পাওয়া গেছে যখন সিরিয়ার পূর্ব গৌতায় সরকারি বাহিনীর টানা পাঁচ দিনের বিমান হামলায় নিহত হয়েছে প্রায় চার শ’র বেশি লোক।

প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা গেছে, রাশিয়ার যুদ্ধবিমান দু’টি ভূমধ্যসাগার উপকূলীয় খেমেইমিম বিমান ঘাঁটিতে অবতরণ করছে। এখন পর্যন্ত সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে রাশিয়া যে প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে তার মধ্যে এটিই সর্বাধুনিক। ইতঃপূর্বেও তারা তাদের ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ও কমব্যাট হেলিকপ্টারের সফল ব্যবহার চালিয়েছে সিরিয়ায়।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, শক্তি প্রদর্শন কিংবা নতুন বিমানের পরীক্ষা করার জন্য এই পদক্ষেপ বিরাট ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। পঞ্চম প্রযুক্তির এই যুদ্ধবিমান সিরিয়ার মোতায়েনের বিষয়ে দ্য গার্ডিয়ানের কাছে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি সিরিয়ার প্রেসিডেন্টের কার্যালয়, ক্রেমলিন কিংবা রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। নতুন উদ্ভাবিত এই বিমানটি এখনো পরীক্ষামূলক পর্যায়ে আছে। গত বৃহস্পতিবার রাশিয়ার আরবিসি সব বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্র তাদের নিশ্চিত করেছে সিরিয়ার রুশ বিমান ঘাঁটিতে স্টিলথ যুদ্ধবিমান মোতায়েনের কথা।

রাশিয়ার সামরিক বাহিনী আগেও জানিয়েছে, তারা তাদের নতুন উদ্ভাবিত যুদ্ধবিমানগুলো যুদ্ধ ক্ষেত্রে সরাসরি ব্যবহার করে তার কার্যকারিতা যাচাই করবে। এরই অংশ হিসেবেই হয়তো এটি করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান লকডিহ মার্টিন এফ-২২কে চ্যালেঞ্জ জানাতেই তৈরি করা হয়েছে রাশিয়ার নতুন বিমানটি। মার্কিন এফ-২২ এর আগে সিরিয়ার আকাশে টহল দিয়েছে।